Monday, June 12, 2017

FIDGET SPINNER / Table top Spinner






we knifes : https://www.youtube.com/watch?v=pZ88-gjd65w

https://www.youtube.com/watch?v=MopnL30TBJ0

 https://www.youtube.com/watch?v=VmcZtjE9XYo

 https://www.rotablade.com/

database list : 

http://hanoispinner.com/index.php/product/diamond/

https://www.instagram.com/hanoispinnerfidget/?hl=en

https://www.youtube.com/watch?v=As2sor_7zo4 

nice design  

and new design 

top quality  



heavy spinner : https://www.mechforce-usa.com/collections/edc

https://www.youtube.com/watch?v=X5h3lQHcfTw

 https://www.youtube.com/channel/UCrfer_gtkihpp-CxMrJnIXw

 Kong 3 in 1 Fidget Spinner

 https://fidgethq.com/

http://fidgetcube.vn/

https://spinner.vn/hyperstone#

https://www.spinnercraft.com/collections/metal-spinners

nice design : http://estimote.com/


https://www.youtube.com/watch?v=TS5q6TBQnxQ 

https://spinnermint.com/


in Aliexpress   >>>1<<<  >>>2<<<   >>>3<<<  

#FIDGET #SPINNER / #Table #top #Spinner

Monday, April 10, 2017

Sunday, October 30, 2016

This Guy Has the Fastest Home Internet in the United States

October 27, 2016 // 09:30 AM EST 

What does the guy with the fastest internet in the United States use his jealousy-inducing bandwidth for? Analyzing X-rays… and gaining an advantage in Call of Duty, of course.
Startup and community-run internet service providers have grabbed headlines over the last two years as they’ve begun rolling out the first 10 gigabit-per-second residential internet connections in the United States. As far as I can tell, though, only one person in the entire country has actually bought one of these connections, which are still incredibly expensive because the technology is so cutting edge.
I met with James Busch—a radiologist and the proud owner of what I am almost certain is the first 10 Gbps residential connection in the United States—at a coffee shop in Chattanooga, Tennessee. I told him about my trials and tribulations with Time Warner Cable in New York City, and he tried to drum up some empathy from a distant past in which he used to send medical imaging studies on a T1 line in Boston. I reminded him that most of us were still on dialup at the time. And then I raised the point that his family alone is living in our blazing fast future.
“When you think about it like that, it’s pretty cool,” Busch told me. “You get spoiled with it.”
For reference, the Federal Communications Commission officially classifies “broadband” as 25 Mbps. His connection is 400 times faster than that.

Busch's fiber setup. His entire house is wired, and fiber comes directly into the house. Image: James Busch


An argument that’s increasingly being raised by policymakers and telecom companies is that gigabit fiber networks—which generally offer 1 Gbps connections—have had relatively slow uptake, because no one needs a connection that fast. Busch found a way to make good use of his 1 Gbps connection, and now he's found a use for 10 Gbps, too.
“An X-ray averages around 200 megabytes, then you have PET scans and mammograms—3D mammograms are 10 gig files, so they’re enormous,” Busch said. “We go through terabytes a year in storage. We’ve calculated out that we save about 7 seconds an exam, which might seem like, ‘Who cares,’ but when you read 20,000 or 30,000 exams every year, it turns out to be something like 10 days of productivity you’re saving just from a bandwidth upgrade.”
While 10 gig connections sound excessive at the moment, Busch says his family quickly started using all of its 1 gig bandwidth.
“We ballooned into that gig within eight or nine months. With my kids watching Netflix instead of TV, with me working, we did utilize that bandwidth,” he said. “There were situations where my daughter would be FaceTiming and the others would be streaming on the 4K TVs and they’d start screaming at each other about hogging the bandwidth. We don’t see that at 10 gigs.”

"You get used to everything happening instantly"

Most importantly, though, his connection has made him a better gamer, because of a phenomenon known as “host advantage” that exists on games that use peer-to-peer servers.
“If you play first person shooters and you’re the host, you get a few milliseconds advantage on other people you’re playing against,” Busch said. “If you have a gig connection, you’re always host, so you end up ruling. I used to play with my buddies online, and one was from Chattanooga so it was always me or him who was the host. We’d always rule Call of Duty with 20 or 30 kills.”
“You get used to everything happening instantly,” he added. “Windows updates, app downloads—instant. The only thing that ties it up is processing power, not the connection.”

"Offering 10 gigs has the symbolic value of ‘plenty.’ It shows our technology can do what no one else can do."

So why does Busch have a 10 Gbps and the rest of us don’t? For one, 10 Gbps offerings are rare and scattered in mostly rural communities that have decided to build their own internet networks. Most companies that have the technology offer gigabit connections (a still cutting-edge technology only available in a handful of cities) at affordable prices and 10 Gbps connections at comparatively exorbitant ones. In Chattanooga, 1 gig connections are $69.99 per month; 10 gig connections are $299.
Thus far, 10 Gbps connections are available in Chattanooga; parts of southern Vermont; Salisbury, North Carolina; and parts of Detroit and Minneapolis. But besides Busch, I couldn’t find any other people in the United States who have signed up for one.
EPB, the Chattanooga government-owned power utility that runs the network, confirmed that Busch is the city’s only 10 Gbps residential customer. Rocket Fiber, which recently began offering 10 Gbps in Detroit, told me that it has “no customers set in stone,” but that it’s in talks with prospective ones. Representatives for US Internet in Minneapolis and Fibrant in Salisbury did not respond to my requests for comment. Michel Guite, president of the Vermont Telephone Company, told me his network has no 10 Gbps customers, either.
“We offer it as a symbolic gesture,” Guite told me. “Offering 10 gigs has the symbolic value of ‘plenty.’ It shows our technology can do what no one else can do. We think the project is fun.”
Guite says that several research institutions have 10 Gbps connections, and Fibrant’s first 10 Gbps connection was a local school. If you know of anyone else who has 10 Gbps as a residential customer, email me with a screenshot of your speed test or your story!
Speaking of speed tests: Busch says only a couple providers can actually handle his connection.
“When I do a speed test, you really feel the engines are turning when you hit the button. I’m at 9.8, 9.5 [gigs per second] reliably,” Busch told me. He was supposed to send me a screenshot of the speed test, but technical difficulties have made it inaccessible for weeks. “I’ve tried on sites that don’t support the 10 gig connection and it freaks out. The speedometer only says 1 gig, but it’ll wrap around a couple times.”
Colman Keane, director of fiber technology at EPB, told me that the organization had to work with Ookla (the most popular online speed test) to “tweak” its system to accommodate the connections.
Another problem affecting 10 Gbps uptake—at least in Chattanooga—is that it isn’t being pushed too hard by EPB because few customers are willing to invest in the enterprise-level internet ports and cables needed to actually get those speeds. Keane said EPB has been more conservative in promoting 10 gig connections because of growing pains it had with 1 gig customers.
“During our 1 gig launch we ran into numerous Windows-based computers with 1 gig ports that had drivers that would only support between 500 and 600 mbps, which makes for a difficult conversation with a customer,” Keane said, meaning customers weren’t getting what they paid for because their computers couldn’t handle it. “Prior to [10 gig] launch, we spent a good bit of time determining minimum specs for both PCs and routers. So with this launch, we can generally start the conversation with what kind of equipment they will need to use the 10 gig service.”
Busch, an early adopter of just about everything, says he’s only got two machines hard-wired to be able to take advantage of the 10 Gbps connection; his wireless router is only able to put out a 3 Gbps signal. Somehow, I don’t feel bad for him.





Sunday, September 25, 2016

How do I logout of my mobile account if I don't have my Android phone?

How to Logout from Facebook or Messenger on Android, iPhone & Windows Phone

If you've lost your phone, you can log out of Facebook to prevent someone else from accessing your account. To do this:
  1. Log into Facebook on a computer
  2. Go to your mobile settings
  3. Click Lost your phone? > Log Out on Phone

Monday, September 5, 2016

South African Foods & Restaurants

Take a look at this list of top 12 South African foods to try in order to get the best picks from dishes with local, Dutch, Malay and French influences. South Africa is by far the most cosmopolitan country in Africa and has a mature tourism industry. There is so much to do and see from going on safari to visiting townships; taking indulgent food and wine tours in the Cape to visiting a foodie haven in Durban. However due to the number of South African migrants worldwide, you no longer have to travel very far to experience a taste of South Africa. Although nothing beats the authentic experience that travel brings, that South African experience may be closer than you think.


  1.  Chakalaka

 Chakalaka is a very simple and easy to make relish which has grown out of the townships of South Africa's cities. Usual components are baked beans, curry, peppers and carrots. It is almost impossible to find a South African bbq (braai) without chakalaka.

 

2.  Biltong

From its humble beginnings as a cured meat made purely for preservation, to the spicy snack it is today, biltong is ubiquitously one of the top South African foods to try. It is loved by many a South African, but may be an acquired taste for others. If you have tried beef jerky and loved it, it is highly likely that biltong will go down very well.


3.  Potjiekos
Potjiekos is a quintessential South African dish born purely out of necessity to cook whilst on the move in the out doors. With its roots set in an Afrikaaner tradition which supposedly emerged during the Great Trek, potjiekos has come a long way; yet it is part and parcel of South Africa's food cuture as we know it today. 


4.  Durban Chicken Curry

An introduction to Durban curries, this chicken curry recipe is quick and easy. The results are very satisfying. You end up with a moreish and comforting curry that goes very well with basmati rice and a sambal on the side.





 5. Bunny chow

Bunny chow is another popular South African food, but it is of Durban origin. It basically entails a hollowed out half-loaf filled with delicacies. Some of the delicacies that are used in bunny chow include curry lamb, chicken or beef but in some instances, it can be vegetarian in nature.


Bunny chow Bunny chow is another popular South African food, but it is of Durban origin. It basically entails a hollowed out half-loaf filled with delicacies. Some of the delicacies that are used in bunny chow include curry lamb, chicken or beef but in some instances, it can be vegetarian in nature.

Read more: http://buzzsouthafrica.com/south-african-food/
Bunny chow Bunny chow is another popular South African food, but it is of Durban origin. It basically entails a hollowed out half-loaf filled with delicacies. Some of the delicacies that are used in bunny chow include curry lamb, chicken or beef but in some instances, it can be vegetarian in nature.

Read more: http://buzzsouthafrica.com/south-african-f

6.  Milk Tart

Milk tart, otherwise known as melktert in Afrikaans, is South Africa's milky answer to the traditional custard tart. A recipe imported by the Dutch, yet melktert is a part of the fabric of South African food that every year, the 27th of February is celebrated in South Africa as the official milk tart day.

 

7.  Apricot Blatjang

Apricot blatjang is a South African chutney made with dried apricots. It is the perfect condiment that goes well with cheese or even bobotie. Is this a chutney, you may ask? Yes, it is a chutney. But not all chutneys qualify as blatjangs. 


 

8.  Malva Pudding

Malva pudding is a South African dessert with its origins in the Cape. It is said to have been created by the Dutch settlers and incorporates apricot jam in the recipe. It is so decadent and is comparable to sticky toffee pudding, but it is so much better. Trust me!

 

 

9.  Pap

Pap is the South African name for the stiff cornmeal porridge which is so famous across the African continent. It is an essential dish at braais (South African barbecues) and is perfect for scooping up thick and tasty sauces and stews. 


 

 

10. Boerewors

Boerewors is a high quality sausage often spiralled into a circular shape, as it is presented. It is made using a high content of meat and can be made of beef, pork or game meat. It is a must have at a braai.

  11. Beef Bobotie

Bobotie is a purely South African dish made with minced or shredded meat, fruit and spices. It is topped off with a savoury custard and bay leaves and baked in an oven until the custard is ready. 

 

12. Braai 

Braai is basically roast meat. Braai as a delicacy has been elevated to the level of an art form due to its popularity amongst the general population most specifically white South Africans
Droewors

Read more: http://buzzsouthafrica.com/south-african-food/2/

 13. Droewors

Droewors is a spiced sausage and can be generally regarded as a smaller, thinner version of boerewors but without the pork. They are usually sundried like biltong and have a longer shelf life when compared to boerewors.

 

Restaurants 

 

Mzansi 

45 Harlem Avenue | Langa, Cape Town Central 7455, South Africa | >website link<
 

Great experience in Africa.highly recommendable.

" Like everything. the Food, the Music, Dance (Pata Pata) the story about the restaurant, the interaction with other guests. I was wonderful. Total Immersion. thank Mzansi."

    

Cape Town Fish Market  
 180 Msasani Bay, Dar es Salaam, Tanzaniaa |  website
 
Just like in SA

"Nice food, nice location, nice staff, busy, fast service. The food was actually very good and combined with the great service this is a place to go back to. The location is perfect on the bay with all outside tables looking onto the water."
 




 




Tuesday, August 30, 2016

মৃত্যুক্ষুধা : নজরুল সাহিত্যের ভিন্ন মেজাজ

কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
গ্রন্থ ঋণ –
১। অরুণ কুমার বসু : নজরুল জীবনী
২। আজহারউদ্দীন খান : বাংলা সাহিত্যে নজরুল
৩। বিশ্বনাথ দে (সম্পাদিত) : নজরুল স্মৃতি
৪। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় : কেউ ভোলে না কেউ ভোলে
৫। সুশীলকুমার গুপ্ত : নজরুল–চরিত মানস

- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
 
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্যs
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
 ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য


ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
ড. অরিজিৎ ভট্টাচার্য
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।

‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।

‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।

‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।

‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।

‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।

নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,

১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”

২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”

এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।

‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।

গ্রন্থ ঋণ –
১। অরুণ কুমার বসু : নজরুল জীবনী
২। আজহারউদ্দীন খান : বাংলা সাহিত্যে নজরুল
৩। বিশ্বনাথ দে (সম্পাদিত) : নজরুল স্মৃতি
৪। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় : কেউ ভোলে না কেউ ভোলে
৫। সুশীলকুমার গুপ্ত : নজরুল–চরিত মানস


 http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
গ্রন্থ ঋণ –
১। অরুণ কুমার বসু : নজরুল জীবনী
২। আজহারউদ্দীন খান : বাংলা সাহিত্যে নজরুল
৩। বিশ্বনাথ দে (সম্পাদিত) : নজরুল স্মৃতি
৪। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় : কেউ ভোলে না কেউ ভোলে
৫। সুশীলকুমার গুপ্ত : নজরুল–চরিত মানস

- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
গ্রন্থ ঋণ –
১। অরুণ কুমার বসু : নজরুল জীবনী
২। আজহারউদ্দীন খান : বাংলা সাহিত্যে নজরুল
৩। বিশ্বনাথ দে (সম্পাদিত) : নজরুল স্মৃতি
৪। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় : কেউ ভোলে না কেউ ভোলে
৫। সুশীলকুমার গুপ্ত : নজরুল–চরিত মানস

- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
গ্রন্থ ঋণ –
১। অরুণ কুমার বসু : নজরুল জীবনী
২। আজহারউদ্দীন খান : বাংলা সাহিত্যে নজরুল
৩। বিশ্বনাথ দে (সম্পাদিত) : নজরুল স্মৃতি
৪। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় : কেউ ভোলে না কেউ ভোলে
৫। সুশীলকুমার গুপ্ত : নজরুল–চরিত মানস

- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
গ্রন্থ ঋণ –
১। অরুণ কুমার বসু : নজরুল জীবনী
২। আজহারউদ্দীন খান : বাংলা সাহিত্যে নজরুল
৩। বিশ্বনাথ দে (সম্পাদিত) : নজরুল স্মৃতি
৪। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় : কেউ ভোলে না কেউ ভোলে
৫। সুশীলকুমার গুপ্ত : নজরুল–চরিত মানস

- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
গ্রন্থ ঋণ –
১। অরুণ কুমার বসু : নজরুল জীবনী
২। আজহারউদ্দীন খান : বাংলা সাহিত্যে নজরুল
৩। বিশ্বনাথ দে (সম্পাদিত) : নজরুল স্মৃতি
৪। শৈলজানন্দ মুখোপাধ্যায় : কেউ ভোলে না কেউ ভোলে
৫। সুশীলকুমার গুপ্ত : নজরুল–চরিত মানস

- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
কাজী নজরুল ইসলাম বাংলা সাহিত্যের একটি স্মরণীয় নাম। কিন্তু তুলনামূলকভাবে নজরুল যেখানে অনুচ্চারিত, উপেক্ষিত রয়েছেন সেটি হচ্ছে তাঁর কথা সাহিত্য। অথচ এমনটা হওয়ার কথা ছিল না । একটা সময় ছিল যখন সৌন্দর্য-সৃষ্টি ও আনন্দ দানই ছিল শিল্প সাহিত্যের চূড়ান্ত উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য। এমন সাহিত্যকে বলা হতো নন্দনতাত্ত্বিক সাহিত্য। পরবর্তীকালে কার্ল মার্কসের অর্থনৈতিক চিন্তাধারা, ফ্রয়েডের মনোবিকলনবাদ ও জৈবিক চেতনা আধুনিক লেখক সমাজের মনোজগতকে প্রচণ্ডভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে। বর্তমান লেখকবৃন্দ নন্দনতাত্ত্বিকতাকে একেবারে পরিহার না করলেও রূঢ় বাস্তবতাকে কিছুতেই উপেক্ষা করতে পারেন না। এরই ফলে সুন্দরের সাথে অসুন্দরের, সুনীতির সাথে দুর্নীতি, দয়ার্দ্রতার সাথে নিষ্ঠুরতা সাহিত্যে উঠে আসে সমান গুরুত্ব নিয়ে। এর সাথে উঠে আসে নরনারীর জৈবিক তাড়না ও নানা টানাপোড়েন। এসবতো জীবনেরই অবশ্যম্ভাবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ। আসল কথা এই যে, অর্থ ও জৈবিক তাড়না মানুষের অন্য প্রায় সকল চেতনার নিয়ামক ও নিয়ন্ত্রক। ঔপন্যাসিকদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা দেয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর কালে। ফ্রয়েড ও মার্কসের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী এই প্রবণতা দানা বাঁধে। বাংলাদেশে মার্কসবাদ তথা সমাজবাদের প্রবক্তা ছিলেন কাজী নজরুল ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু মোজাফ্ফর আহমদ। অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবেই বন্ধুর উপর পড়ে বন্ধুর প্রভাব। কাব্যে সাম্যবাদী কবিতাগুচ্ছ ও আরো অনেক কবিতায় এ প্রভাব বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায়। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসেও সর্বহারাদের জীবন নিয়েই নজরুল শুরু করেছিলেন, যদিও শেষ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করতে পারেননি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি মাসে। কৃষ্ণনগরে অবস্থানকালে নজরুল এ উপন্যাসটি রচনা করেন। এই উপন্যাসে নজরুলের যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অনেকখানি ছায়াপাত ঘটেছে। ১৯২৭ থেকে ১৯৩০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত ‘মৃত্যুক্ষুধা’ ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায়। নজরুল ১৯২৬ থেকে ১৯২৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের ধারে একতলা এক বাংলো প্যাটার্নের বাড়িতে বাস করতেন। কবি এ সময় কঠিন দারিদ্র্য-দুঃখে নিপতিত হয়েছিলেন। প্রকাশকদের অসহযোগিতা ও হৃদয়হীনতাই নজরুলের অসহ অনটন ও অর্থকষ্টের কারণ হয়েছিল। নজরুলের বই বিক্রয় করে প্রকাশকরা ফুলে ফেঁপে উঠেছেন আর নজরুল অভাব ও কষ্টের সমুদ্রে হাবুডুবু খেয়েছেন। তাঁর সুবিখ্যাত ও বহুপঠিত কবিতা ‘দারিদ্র্য’ এই সময়েরই রচনা।
‘মৃত্যুক্ষুধা’  উপন্যাসের পটভূমি কৃষ্ণনগরের চাঁদ সড়কের এক বস্তি এলাকা। এখানে বাস করে এক দরিদ্র মুসলিম পরিবার। বৃদ্ধা মা, তিনটি বিধবা পুত্রবধূ ও তাদের কয়েকটি সন্তান। আবার ঊনিশ বছরের একটি ছেলে, স্বামীর বাড়ি ফেরৎ একটি মেয়ে নিয়ে তার হতদরিদ্র সংসার। বৃদ্ধার ছেলের নাম প্যাঁকালে। প্যাঁকালের হাড়ভাঙা পরিশ্রমের ফলেই এই সংসারটি টিকে আছে কোনো রকমে। সে ভালোবাসে কুশি নামে এক খ্রিস্টান মেয়েকে। কুশিও ভালোবাসে প্যাঁকালেকে। এই দরিদ্র পরিবারের সাথে আর একটি কাহিনি এসে জুড়েছে। প্রথম কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধাও আছে কিন্তু দ্বিতীয় কাহিনিতে মৃত্যু আছে, ক্ষুধা নেই। দ্বিতীয় কাহিনিটি সংসার-বিবাগী দেশপ্রেমিক বিপ্লবী আনসারের। আনসার ভালোবাসতো ময়মনসিংহের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কন্যা রুবীকে। রুবীও ভালোবাসতো তাকে। কিন্তু মা-বাবা রুবীকে বিয়ে দেয় এক অর্থ লোলুপ যুবকের সাথে। রুবী তাকে স্বামী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। অবশ্য অল্পদিনের মধ্যেই রুবীর স্বামী মৃত্যুবরণ করে। আনসার রাজবন্দী অবস্থায় ক্ষয়রোগে আক্রান্ত হয়। রুবী এ সংবাদ পেয়ে ছুটে যায় আনসারের কাছে। আনসার মৃত্যুবরণ করে ক্ষয়রোগে। কাহিনি শেষ হয় একই রোগে রুবীর আসন্ন মৃত্যুর ইঙ্গিতে দিয়ে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে অঙ্কিত হয়েছে নজরুল জীবন-চিত্র। প্রথম অংশে কিশোর আর দ্বিতীয় অংশে যুবক নজরুল প্যাঁকালে চরিত্র প্রতিনিধিত্ব করেছে নজরুলের কৈশোরক জীবনকে, আর আনসার করছে নজরুলের পরিণত ও আদর্শায়িত জীবনকে। তবে তুলনামূলকভাবে পঁ্যাকালে চরিত্র অনেক বেশি উজ্জ্বল ও বাস্তব। প্যাঁকালে টাউনের থিয়েটার দলে নাচে, সখীসাজে গান করে, কাজও করে- রাজমিস্ত্রির কাজ। বাবুঘেঁষা হয়ে সেও একটু বাবু গোছের হয়ে গেছে। টেরি কাটে, সিগারেট টানে, পান খায়, চা খায়। পাড়ার মেয়ে মহলে তার মস্ত নাম। বলে- যেমন গলা তেমনি গান, তেমনি সৌখিন। থিয়েটারে নাচে, বাবুদের থিয়েটার । মুহূর্তেই আমাদের মনে পড়ে যায় লেটোর দলের গান লেখক গায়ক অভিনেতা নজরুলকে। প্যাঁকালে গভীর সহানুভূতিশীল ও বিবেচক। পুরো সংসারটা তার ঘাড়ের উপর। একটা আয়না কেনার জন্যে রোজ সে চার আনা পয়সা রাখে। কিন্তু বাজার করতে গিয়ে যখন দেখে ছ আনায় সকলের খাবার মতো চালই পাওয়া যায় না তখন বাধ্য হয়ে লুকোনো সিকিটা বের করতে হয়। প্যাঁকালে জীবন ও জীবিকার তাগিদে খান সাহেবের বাড়িতে কুড়ি টাকায় চাকরি নিয়েছিল। যেমন নজরুলও খ্রিস্টান গার্ড সাহেবের ‘বয়’-এর চাকরি নিয়েছিলেন পঁচিশ টাকায়। প্যাঁকালে (ওমান কাতলি (রোমান ক্যাথলিক) শিমধু ঘরামির কন্যা কুর্শিকে)  ভালোবেসেছিল। এই ভালোবাসাকে সার্থক করার জন্য সে ধর্মান্তরিত হতেও দ্বিধা করেনি। অবশ্য সে শেষ পর্যন্ত ফিরে এসেছে সস্ত্রীক স্বধর্মে।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের একটি অনন্য সাধারণ চরিত্র মেজবৌ। মেজবৌ অত্যন্ত সুন্দর দেহে যেমন মনেও তেমনি। অত্যন্ত উদার হৃদয়, স্নেহপ্রবণ, সহানুভূতিশীল। দারিদ্র্যের দগ্ধ মরুতে সে যেন এক সুশীতল মরুদ্যান। দরিদ্র ঘরের রূপসী বিধবার প্রতি লালসা আর কামনার দৃষ্টি কটাক্ষ, হাতছানি চারদিকে। এসব থেকে নিজেকে অত্যন্ত কৌশলে বাঁচিয়ে রেখেছে। এ চরিত্রটি অপার সম্ভাবনা নিয়ে শুরু হয়েছিল। তাঁর অন্তর্দ্বন্দ্ব ও বহির্দ্বন্দ্ব উপন্যাসের উৎকর্ষকে অন্য মাত্রা দেবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু নজরুল সে পথে যান নি। যথেষ্ট কারণ ছাড়াই ঔপন্যাসিক মেজবৌকে ধর্মান্তর করালেন। সে ছেলেমেয়ের খাওয়া-পরার জন্য খ্রিস্টান হলেন, তাদেরকে ফেলে রেখে চলে গেলেন অনেক দূরে- বরিশালে। আবার ছেলের অসুখের সংবাদ জেনে ফিরে এলেন বাড়িতে। ধর্মান্তরিত না হয়েও মুসলমান বাড়িতে কোনো খ্রিস্টান মহিলা দিনের পর দিন অবস্থান করতে পারেন কিনা এ কথাও ঔপন্যাসিক ভেবে দেখেননি। মেজবৌকে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রীকান্ত উপন্যাসের কমললতার সাথে তুলনা করা যায়। রাজলক্ষ্মী যেন রুবী। আর কমললতা মেজবৌ। সাদৃশ্যটি দূরবীক্ষণীয় হলেও একেবারে দুর্লক্ষ নয়। আনসার চরিত্রটি নজরুলের পরিণত বয়সের প্রতিরূপ। এখানে আমরা পাচ্ছি সংসার বিরাগী ধ্যানী, শিল্প প্রেমিক, সর্বোপরি বিপ্লবী স্বদেশ প্রেমিক নজরুলকে। মানুষের জন্য জাতির জন্য, দেশের জন্য আনসার সর্বত্যাগী হয়েছে। এমনকি নিজের জীবনও সঁপে দিয়েছে মৃত্যুর নির্মম শীতল হাতে। সে নজরুলের যোগ্যতম প্রতিনিধি।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের প্রথম অংশে যে ঘটনাবলি দেখতে পাই এবং যে জীবন স্পন্দন অনুভব করি তা বাস্তব জীবন থেকে আহরিত।  ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে চাঁদসড়কের কতকগুলো সত্যিকার চরিত্র কেবল নাম বদলে ব্যবহার করা হয়েছে। গজালের মার আসল নাম ছিল হবির মা। তাঁর তিন ছেলে- বড় নূর মোহাম্মদ, মেজো হাবিব ও ছোট করিম (প্যাঁকালে), মেজো ছেলে হাবিবের স্ত্রীই মেজবৌ। রোমান ক্যাথলিক পাড়ার হিড়িম্বার সত্যিকার নাম কামিনী।
নজরুল প্রধানত রোমান্টিক কবি। কাব্যের ভাষায় তাই অলঙ্কার ব্যবহার স্বভাবজ। কিন্তু ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসে গদ্য ভাষা ব্যবহারের বিশিষ্টতা এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। উপমা-উৎপ্রেক্ষা, যমক শ্লেষ প্রভৃতি অলঙ্কারের অনায়াস প্রয়োগ এ উপন্যাসের ভাষাকে এক অসাধারণ ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত করে তুলেছে। কয়েকটি উদ্ধৃতি স্মরণ করে নেওয়া যেতে পারে,
১। “সেজবৌ পাশ ফিরে কাশতে থাকে। মনে হয় ওর প্রাণ গলায় এসে ঠেকেছে। কবর দেবার জন্য বাঁশ কাটার শব্দটা যেমন ভীষণ করুণ শোনায় তেমনি তার কাশির শব্দ ।”
২। “ভোর না হতেই সেজ বৌ’র খোকা সেজ বৌ’র কাছে চলে গেল। শবে বরাত রজনীতে গোরস্থানের মৃতপ্রদীপ যেমন ক্ষণেকের তরে ক্ষীণ আলো দিয়ে নিবে যায়। তেমনি ।”
এছাড়া মৃত্যুক্ষুধা উপন্যাসে নজরুল স্থানীয় পরিবেশ নির্মাণে আশ্চর্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যক্তি অনুযায়ী মুখের ভাষা, অবস্থা অনুযায়ী পরিচ্ছদ ও আচরণ-উচ্চারণ, এমনকি মিশনারীদের মুখে বাংলা ভাষায় ইংরেজি টানটিও যথাযথ রেখেছেন।
‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসের শিল্পসিদ্ধি সম্পর্কে আলোচনা এই প্রবন্ধের একমাত্র উদ্দেশ্য নয়। এই আলোচনা প্রসঙ্গে অন্য একটি বিষয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। প্রথম বিশ্বযুদ্ধোত্তর রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব বিশ্বের চিন্তাজগতেও বিপ্লবের জন্ম দিয়েছিল। এর প্রভাবে সাহিত্যে প্রভাব ফেললো বস্তুতান্ত্রিকতা। শিল্পের জন্যই শিল্প নয়। মানুষের জন্যই শিল্প। সাহিত্যে খেটে খাওয়া কর্মজীবী মানুষের অনাড়ম্বর ও অভাব অনটনে পর্যুদস্ত জীবনচিত্র ফুটে উঠলো। বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রেও এ প্রবণতার ব্যতিক্রম হলো না। এ প্রবণতারই অন্যতম প্রথম রূপকার কাজী নজরুল ইসলাম। ‘মৃত্যুক্ষুধা’ উপন্যাসটি এই মন্তব্যের সপক্ষে প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উৎকর্ষের বিচারে না হলেও এদিক থেকে উপন্যাসটির ঐতিহাসিক মূল্য সমধিক এবং অবশ্যই মূল্যায়নের দাবি রাখে।
- See more at: http://www.deshebideshe.com/news/details/82736#sthash.dQzKpgbr.dpuf
EID MUBARAK to everybody